Posts

শৈশবের গল্প এবং মুক্তা ভাই

বর্ষাকাল। আমরা তখন গাড়াদহ গ্রামে থাকি, নতুন বাড়িতে। আমি তখন খুব ছোট, ছোট ওয়ানে পড়ি সম্ভবত। আমার চেয়ে বেশ কয়েক বছরের বড় এক ফুপাতো ভাই ছিলেন, নাম মুক্তা। তিনি তখন ক্লাস থ্রি কি ফোরে পড়েন। আমি এবং চাচাতো ভাই জুয়েল তার ভীষণ রকমের ভক্ত ছিলাম। তিনি নতুন কিছু কিনলেই সেটা আমাদের দেখাতেন এবং গল্প করতেন। একবার মুক্তা ভাই জিজ্ঞাসা করলেন, বলতো এক কলমে কয় শীষ? আমি বললাম এক কলমে এক শীষ। তিনি তখন বললেন এক কলমে দুই শিষ দেখেছিস কখনো? এক কলম দিয়ে দুই রঙের লেখা যায়, লাল এবং নীল। এই রকম কলম আমরা আগে কখনো দেখিনি, তাই বিষয়টা আমাদের অজানা ছিলো। আমি আর জুয়েল একে অন্যের মুখের দিকে তাকিয়ে বললাম, তাই কখনো হয় নাকি? আমাদের তিনি অবাক করে দিয়ে তার পকেট থেকে একটা কলম বের করলেন, যেটাতে দুই রঙের কালি ছিলো। তিনি আমাদের হাতে দাগ টেনে এক কলমে যে দুই রঙের লেখা যায় তার প্রমাণ দিলেন। তখন ইকোনো বলপেনের ব্যাপক প্রচলন ছিলো, মুক্তা ভাই দুইটা বলপেন বের করে বললেন, দুই কলম জোড়া লাগাতে পারবি? যমজ কলম বানাতে পারবি? ছোট মাথায় তখন অত কিছু খেলতো না। তাই বললাম সেটা কি করে সম্ভব? জুয়েল বলল কলম কখনো যমজ হয় নাক…

Natur

Hvis vi går til natur; skogen eller fjellet. Står og sier «jeg er glad i deg, og skal passe på deg». Etter på lytter vi det same ordene «jeg er glad i deg, og skal passe på deg» som eko. Vis vi sier noe negativt, vi lytter det samme. Alt vi sier til naturen får vi det tilbake. Vis vi tenker litt dypt om det, vi kan lære noe. Uten grunn kjer ingen ting, alt som kjer har en eller flere grunner. 
I dag vi ser unormalt klimaendringene. Det betyr vi menneskene var ikke forsiktig mot natur.

Vi alle er «flyktninger»

Vi alle er «flyktninger» Flytter «sperm» fra far til mor i «livmor»  og sperm flytter formen til «baby». Etter en stund flytter «baby» fra livmor til mor’s runde. 
Noen flytter i innlandet, noen til utlandet, en kontinent til annen kontinent. 
Tid flytter seg, så flytter vi en sted til annen sted,  en leilighet til annen leilighet. 
Slutten av en viss tid flytter alle fra livet til døden.  Vi alle er «flyktninger»
Arifur Rahman Oslo 19.10.2018

ব্যাঙ্কিং সেবা

Image
সময়ের সাথে সব কিছু বদলে যাচ্ছে, বদলে যাচ্ছে জীবন যাত্রার মানএবং ধরণ। একটা সময় বিদ্যুৎ বা টেলিফোন দেয়ার জন্য লোকজন ব্যাংকে গিয়ে লম্বা লাইনে দাঁড়াতো।
এরপর যখন অনলাইন ব্যাংকিংয়ের যুগ শুরু হলো তখন লোকজন ব্যাংকে গিয়ে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে বিল পরিশোধ করার বদলে ঘরে বসেই কম্পিউটারে করতে লাগলো। এখন সবার হাতে হাতে ইন্টারনেট সংযুক্ত স্মার্ট ফোন। বর্তমানে ডেস্কটপ থেকে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর তুলনায় মোবাইল থেকে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেশি আর এই কারণেই ব্যাংকগুলো অনলাইন ব্যাঙ্ক থেকে স্মার্টব্যাংকে রূপ নিয়েছে। ব্যাংকের মোবাইল এপপ্স চালু করে মোবাইলের ক্যামেরায় বিলপেপারের ছবি তুললেই প্রাপকের ব্যাঙ্ক নম্বর এবং টাকার পরিমান সহ বিস্তারিত তথ্য এপপ্সটি আপনা আপনি পূরণ করে নেয়। আমার কাজ শুধু পাসওয়ার্ড প্রবেশ করিয়ে ওকে বাটনে ক্লিক করা। ব্যাস বিদ্যুৎ বা টেলিফোন বিল পরিশোধ  করার কাজ শেষ।

আজ প্রথম বারের মত স্মার্ট ব্যাঙ্কিং সেবার অভিজ্ঞতা অর্জন করলাম। 


The story of a Bengali

Image
When my grandparents were born.
By born they were British Indian citizen.
Because on this time our part of Bengal was part of India,
and India was the colony of Britain.

When my parents were born.
By born they were the Pakistani citizen.
Because on the time our part of Bengal was united with Pakistan,
and separated from India.
and the colony of Pakistan.

When I was born, by born I was a Bangladeshi citizen.
Because at the time we were independent.
This is a story of my generation who born in Bangladesh.

Maybe our next generation will extend the story,
and will tell you the untold part of the story and continue.

Arifur Rahman
Drøbak, Norway

Bengali: 
আমার দাদা-দাদী যখন জন্মগ্রহণ করেছিলেন,
তখন জন্মসূত্রে তারা ছিলেন ব্রিটিশ ভারতীয় নাগরিক।
কারণ সে সময়ে আমাদের বঙ্গভূমি ভারতের অংশ ছিল,
আর ভারত তখন ব্রিটেনের উপনিবেশ ছিল।


আমার বাবা-মা যখন জন্মগ্রহণ করেছিলেন,
তখন জন্মসূত্রে তারা ছিলেন পাকিস্তানি নাগরিক।
কারণ সে সময়ে আমাদের বঙ্গভূমি পাকিস্তানের অংশ ছিল,
এবং আমরা তখন পাকিস্তানের উপনিবেশ ছিলাম।


ফেসবুক ভেরিফাইড একাউন্ট

Image
যথারীতি রাত জেগে আমার প্রকল্প নিয়ে কাজ করে রাত ৩টার দিকে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। সকালে  সাড়ে দশটার দিকে এলার্মের শব্দে ঘুম ভেঙে গেলো।  ঘুম ঘুম চোখে মোবাইল হাতে নিয়ে ইমেইল চেক করতে করতে দেখি ফেসবুক থেকে ইমেইল এসেছে।  ইমেইলে লেখা আছে আপনার প্রোফাইল ফেসবুক কতৃক ভেরিফাইড করা হয়েছে,  এখন থেকে আপনার ফেসবুক প্রোফাইলের নামের পাশে নীল ব্যাজ প্রদর্শিত হবে। আপনি ভেরিফাইড ফেসবুক একাউন্ট না চাইলে 'সাবমিট এ রিকুয়েস্ট' লিংকে ক্লিক করতে বলেছে। নিরাপত্তা জনিত কারণে, আমি সাধারণত ইমেইলে পাওয়া কোনো লিংকে ক্লিক করি না।  কখনো কখনো স্প্যামার বা হ্যাকার ইমেইলে লিংক পাঠিয়ে ক্লিক করতে বলে। যেমন এর আগে একবার ফেসবুকের মতোই ব্র্যান্ডেড ইমেইলে লিংক পাঠিয়ে লিখেছে আপনার একাউন্ট ঝুঁকিপূর্ণ এক্ষুনি পাসওয়ার্ড  পরিবর্তন করুন। আমি লিংকে ক্লিক করতেই একটা সাইট ওপেন হলো, যেটার লগইন পেজ দেখতে অবিকল ফেসবুকের লগইন পেজের মতো, একটা ঘরে পুরাতন পাসওয়ার্ড চেয়েছে অন্য ঘরে নতুন পাসওয়ার্ড দিতে বলেছে, ইউআরএল-এর দিকে খেলাল করেই বুঝলাম এটি ফেসবুক নয়, এটি একটি ফাঁদ, সঙ্গে সঙ্গে আমি সাইটটি ত্যাগ করলাম।  এই রকম আরো বেশ কয়েকবার হ্যাকারর…

টুনস ম্যাগে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

Image
টুনস ম্যাগের নবম বর্ষপূর্তিকে উপলক্ষ্যে নতুন সংস্করণের কাজ চলছে। লোগো পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে সাইটের ফিচারে নতুনত্ব থাকছে, সেই সাথে থাকছে তথ্যের গভীরতা।
 নতুন বছরে সংক্ষিপ্ত নীতিবাক্য; it's time to change.

 বিভিন্ন CMS নিয়ে কাজ করেছেন, HTML, CSS-এ পারদর্শী, ইংরেজী ভাষা শুদ্ধভাবে লিখতে পড়তে পাড়েন এমন এক জনকে খন্ডকালীন Content Managmant কাজের জন্য নিয়োগ দেয়া হবে। যোগ্য এবং আগ্রহীরা ইনবক্সে যোগাযোগ করতে পারেন, কোন প্রশ্ন থেকে থাকলে সেটাও জানাতে পারেন। ইমেইল করতে পারেন এই ঠিকানায়: post@toonsmag.com বেতন আলোচনা সাপেক্ষ্য।

 উল্লেখ্য; টুনস ম্যাগ একটি অনলাইন কার্টুন ম্যাগাজিন। বর্তমানে পাঁচটি ভাষায় প্রকাশিত হচ্ছে। বাংলাদেশী কার্টুনিস্ট আরিফুর রহমান টুনস ম্যাগের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রকাশক। প্রতি বছর বিভিন্ন বিষয়ে আন্তর্জাতিক কার্টুন প্রতিযোগীতা ও প্রদর্শনীর আয়োজন করে আসছে, সেই সাথে বিভিন্ন দেশের আন্তর্জাতিক কার্টুন প্রতিযোগীতা এবং প্রদর্শনীর পৃষ্ঠপোষকতা করে চলছে। “কার্টুনিস্ট অফ দ্যা ইয়ার” পদক প্রতি বছর টুনস ম্যাগ প্রদান করে থাকে। প্রতি মাসে ১৪০+ দেশ থেকে টুনস ম্যাগ পড়া হয়ে থাকে।…